চকরিয়ায় গলায় ফাঁস লাগিয়ে কোরক বিদ্যাপীঠ স্কুলের শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

Chakaria-Pic-Korak-Biddapeet-Student-Sahel-19-08-17.jpg

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া :
চকরিয়ায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে মহিউদ্দিন সাহেল (১৪) নামে অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্র। গতকাল শনিবার সকাল ৮টার দিকে চকরিয়া পৌরসভার ভরামুহুরী গ্রামীন ব্যাংক এলাকায় ভাড়া বাসায় এ আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। নিহত ছাত্র মহিউদ্দিন উপজেলার কৈয়ারবিল ইউনিয়নরে হামিদউল্লাহ সিকদার পাড়ার বাসিন্দা সৌদি প্রবাসী জসিম উদ্দিনের ছেলে ও চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ স্কুলের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র।
প্রতিবেশি লোকজন জানান, শনিবার ভোরে ফজরের নামাজের পর মহিউদ্দিনের নানা বাসায় এসে তাকে (মহিউদ্দিনকে) ঘুম থেকে জাগিয়ে দেয়। পরে বাসার একটি রুমে ফ্যানের সাথে মায়ের ওড়না গলায় দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে মহিউদ্দিন। ঘটনাটি দেখে তাৎক্ষনিক বাসার মালিক নানার বাড়ির লোকজনকে খবর দেন। পরে নানার বাড়ির লোকজন ঘটনাস্থলে এসে তাকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
প্রতিবেশিরা ধারণা করছেন, সপ্তাহ খানেক আগে (গত ১০ আগষ্ট) তাকে বাসায় একা রেখে মাতা পারভীন আক্তার হজ্বের উদ্দেশ্যে সৌদিআরব গমণ করেন। অপরদিকে দীর্ঘদিন থেকে জীবিকার তাগিদে সৌদিতে রয়েছেন বাবা জসীম উদ্দিন। সেই কারনে বাসায় কেউ না থাকায় কোন এক পূঞ্জিভুত ক্ষোভ থেকে কিংবা মায়ের সাথে তাকে হজ্জে না নেয়ায় অভিমান করে শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন সাহেল আত্মহত্যার ঘটনাটি সংগঠিত করেছে।
নিহত শিক্ষার্থী মহিউেিদ্দনের মামা ফয়সাল জানান, মহিউদ্দিন বাবা-মা’র প্রথম সন্তান। তার ছোটভাই কয়েকবছর আগে পানিতে ডুবে মারা যায়। মহিউদ্দিন চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ থেকে ৮ম শ্রেণীর দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা দিয়েছে। পরীক্ষায় গণিতে ফেল করে। সেই কারনে শুক্রবারও (১৮ আগষ্ট) সে স্কুলে প্রাকপ্রস্ততি মুলক পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন। তবে এখনো ফলাফল ঘোষনা করা হয়নি।
চকরিয়া থানার ওসি মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করা হয়েছে। তার গলায় ওড়না প্যাঁচানোর দাগ রয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top