চকরিয়া উপজেলা হাসপাতালে সেবার মানোন্নয়নে সনাকের মতবিনিময় সভা

Chakaria-Picture-29-07-17.jpg

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) চকরিয়ার সহযোগিতায় ও চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উদ্যোগে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সেবার মানোন্নয়নে সেবাগ্রহীতা ও কর্তৃপক্ষের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভা শনিবার কমপ্লেক্সের হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. রফিক-উস-ছালেহীন। টিআইবি চকরিয়ার এরিয়া ম্যানেজার এ.জি.এম. জাহাঙ্গীর আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় শুভে”ছা বক্তব্য রাখেন সনাক সদস্য মাইনুদ্দীন হাসান শাহেদ। সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা দুরীকরনে সেবাগ্রহীতা ও নাগরিক সমাজের ভূমিকা বিষয়ে বক্তব্য রাখেন কমপ্লেক্সের আএমও ডা. মোহাম্মদ ছাবের। বক্তব্য রাখেন ডা. মোহাম্মদুল হক, সনাক সভাপতি এ. কে.এম.শাহাবুদ্দিন, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নোমান, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি এডভোকেট এম. লুৎফুল কবির, কেমিস্টি এন্ড ড্রাগিস্ট সমিতির সভাপতি আ: কামাল উদ্দীন ও পল্লী চিকিৎসক সমিতির সভাপতি খাইরুল আলম। সভায় সাংবাদিক, শিক্ষক, ব্যবসায়ী, সনাক নেতৃবৃন্দ বিভিন্ন পেশাজীবি প্রতিনিধি উপ¯ি’ত ছিলেন। সভায় সেবাগ্রহীতা, সাংবাদিক ও পেশাজীবিরা সেবার মানোন্নয়নে বিভিন্ন পরামর্শ তুলে ধরার পাশাপাশি বিদ্যমান সেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা বিশেষ করে দামী ও প্রয়োজনীয় ওষুধের স্বল্পতা, বিভিন্ন ক্লিনিকের দালালদের দৌরাত্ম বন্ধ, চর্ম, চক্ষু, ডেন্টাল চিকিৎসক না থাকা, দীর্ঘদিন ধরে এক্সরে মেশিন বিকল থাকা, ওয়ার্ডে সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে নার্সদের যথাসময়ে সাড়া না পাওয়াসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে কর্তৃপক্ষের কাছে সরাসরি প্রশ্ন করে প্রতিকার চান। পাশাপাশি চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যা থেকে ১০০ শয্যায় রুপান্তরে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট তুলে ধরার দাবী জানান। এ সময় কর্তৃপক্ষ সকলের প্রশ্ন ধৈর্য্য সহকারে শুনেন এবং সেবার মানোন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের আশ^াস দেন। সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. রফিক-উস-ছালেহীন বলেন চকরিয়ার পাশাপাশি পাশ^বর্তী উপজেলার দূর-দূরান্ত থেকেও চিকিৎসা সেবা নেয়ার জন্য রোগীরা আসেন। প্রতিদিন গড়ে ৪০০-৪৫০ জন রোগী চিকিৎসা সেবা নেন, অন্তবিভাগে প্রতিদিন গড়ে ৮০/৯০ জন রোগী নিয়মিত ভর্তি থাকে অথচ সে পরিমান জনবল ও মেডিসিন আমাদের সরবরাহ নাই। বিষয়গুলো ইতোমধ্যে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। এত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও আমাদের আন্তরিকতার কোন ঘাটতি নেই। আজকের সভার আলোকে চিহ্নিত সমস্যাগুলো দূরীকরণের পাশাপাশি আগামীতে সেবাগ্রহীতারা যাতে আরো বেশী সুফল পান আমরা সেই উদ্যোগই গ্রহণ করব।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top