টেকনাফে সীমান্ত বানিজ্য ও করিডোর ব্যবসায়ীদের মাঝে উদ্বেগ

Bondor-pic_jahaj.jpg

নিজস্ব প্রতিনিধি: সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক নাফ নদীতে মাছ ধরা বন্ধের ঘোষনায় টেকনাফ স্থল বন্দরের ব্যবসায়ী ও শাহপরীরদ্বীপ গবাদি পশু আমাদানী কারকদের মাঝে উদ্বেগ দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক নাফ নদীতে মাছ ধরা বন্ধের ঘোষনা দিলেও স্থল বন্দরের ব্যবসায়ী ও গবাদি পশু আমদানীর ট্রলার গুলো চলাচলের ক্ষেত্রে কোন বিধিনিষেধ থাকবে কিনা অথবা মিয়ানমার থেকে পন্যবাহী ট্রলার সমুহ চলাচলে কোন দিক নির্দেশনা রয়েছে কিনা সে ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসনের কোন বক্তব্য পাওয়া না যাওয়ায় এ উদ্বেগ বলে জানা গেছে।

ইতিমধ্যে নাফ নদীতে মাছ ধরা বন্ধের ঘোষনায় মিয়ানমারের ব্যবসায়ীদের মাঝে অজানা উদ্বেগের কারণে টেকনাফ বন্দরে আসার জন্য ট্রলার বোঝাই পন্য সেদেশের বন্দরে প্রস্তুত থাকলেও তারা রওয়ানা দিতে বিলম্ব করে যাচ্ছে। আবার পন্য বোঝাই ট্রলার না আসায় এখানকার আমদানীকারকগন উদ্বেগের মধ্যে রয়েছে।

ফলে টেকনাফ বন্দরের ব্যবসায়ী ও গবাদি পশু আমদানীর স্বাভাবিক প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখতে এ ব্যাপারে ঘোষনার মাধ্যমে ভ্রান্তি দূর করা দরকার বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা।

এ ব্যাপারে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন সিদ্দিকের কাছে জানতে চাইলে জানান, নাফ নদীতে মাছ শিকারের ব্যাপারে যে নিষেধাজ্ঞা তা শুধুমাত্র রাতের বেলা কার্যকর হবে। অর্থাৎ রাতের বেলা নাফ নদীতে মাছ শিকার করা যাবেনা। দিনে স্বাভাবিকভাবে মাছ শিকার করা যাবে। যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হযেছে অতি শীঘ্রই এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে বলে জানান তিনি।

তবে স্থল বন্দরের পন্যবাহী কোন ট্রলার এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে না। বৈধ কাগজপত্র নিয়ে আসা পন্যবাহী ট্রলার গুলো স্বাভাবিকভাবে চলাচল করবে বলে জানান তিনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন...

Top